নির্দেশনা

ন্যাপ্রােক্সেন ও ইসােমিপ্রাজল ট্যাবলেট নিম্নোক্ত উপসর্গে নির্দেশিত-
  • অস্টিওআর্থ্রাইটিস
  • রিউমাটয়েড আর্থ্রাইটিস
  • অ্যানকাইলােজিং স্পন্ডিলাইটিস এর লক্ষণ ও উপসর্গ নিরসনে এবং
  • যে সকল রােগীর এন.এস.এ.আই.ডি সেবন সংশ্লিষ্ট গ্যাস্ট্রিক আলসার হবার সম্ভাবনা রয়েছে তাদের গ্যাস্ট্রিক আলসার কমানাের ক্ষেত্রে।

ফার্মাকোলজি

এই ট্যাবলেটে রয়েছে ইমিডিয়েট রিলিজের ইসােমিপ্রাজল ম্যাগনেসিয়ামের স্তর এবং তার ভেতরে এন্টেরিক কোটেড ন্যাপ্রােক্সেন। যার ফলে ক্ষুদ্রান্ত্রে ন্যাপ্রােক্সেন বের হবার পূর্বে প্রথমে ইসােমিপ্রাজল পাকস্থলিতে বের হয়।

ন্যাপ্রােক্সেন একটি এন.এস.এ.আই.ডি. যার ব্যথা ও জ্বরনাশক বৈশিষ্ট্য রয়েছে। ন্যাপ্রােক্সেনের মােড অব অ্যাকশন হলাে এটি প্রােস্টাগ্ল্যান্ডিন তৈরীতে বাধা দেয়। ইসােমিপ্রাজল একটি প্রােটন পাম্প ইনহিবিটর যা প্যাট্রিক প্যারাইটাল কোষে নির্দিষ্টভাবে H+/K+ -ATPase কে বাধা প্রাদান করার মাধ্যমে এসিড নিঃসরন কমিয়ে ফেলে। নির্দিষ্টভাবে প্রােটন পাম্পের উপর কাজ করার ফলে ইসােমিপ্রাজল এসিড তৈরীর শেষ ধাপকে বন্ধ করে দেয় ফলে এসিডিটি কমে যায়।

ঔষধের মাত্রা

এই ট্যাবলেট ব্যবহারের পূর্বে এর সাথে অন্যান্য চিকিৎসার সম্ভাব্য সুবিধা ও অসুবিধা সাবধানতার সাথে বিবেচনা করা প্রয়ােজন। প্রত্যেক রােগীর চিকিৎসার জন্য প্রয়ােজনীয় নিম্নতম সেবনমাত্রা নির্ধারন করতে হবে। যদি ৪০ মি.গ্রা. এর কম ইসােমিপ্রাজলের প্রয়ােজন হয় তবে ভিন্ন ওষুধ সহকারে চিকিৎসা করতে হবে।

অস্টিওআর্থ্রাইটিস, রিউমাটয়েড আর্থ্রাইটিস, অ্যানকাইলােজিং স্পন্ডিলাইটিস:
  • প্রাপ্ত বয়স্ক: ৩৭৫/২০ মি.গ্রা. অথবা ৫০০/২০ মি.গ্রা. ১টি করে ট্যাবলেট দিনে দুই বার।
জুভেনাইল ইডিওপ্যাথিক আথ্রাইটিস (বয়স ১২ বছর এবং তার উর্ধ্বে রােগী):
  • ওজন ৫০ কেজির উর্ধ্বে: ৩৭৫/২০ মি.গ্রা. অথবা ৫০০/২০ মি.গ্রা. ১টি করে ট্যাবলেট দিনে দুই বার।
  • ওজন ৩০ কেজির উর্ধ্বে এবং ৫০ কেজির নিচে: ৩৭৫/২০ মি.গ্রা. ১টি করে ট্যাবলেট দিনে দুই বার।

সেবনবিধি

ট্যাবলেটটি ভাঙ্গা, চোষা, চিবানাে অথবা দ্রবীভূত করা যাবে না। ইহা খাবার অন্তত ৩০ মিনিট পূর্বে সেবন করতে হবে।

ঔষধের মিথষ্ক্রিয়া

  • এন.এস.এ.আই.ডি এর সাথে ব্যবহারের ফলে এ.সি.ই. ইনহিবিটরের এন্টিহাইপারটেনসিভ ইফেক্ট, ডাইইউরেটিক এবং বিটা ব্লকারের কার্যক্ষমতা হ্রাস পেতে পারে।
  • ওয়ারফেরিনের সাথে ব্যবহার করলে রক্তক্ষরণ জনিত সমস্যা বৃদ্ধি করতে পারে।
  • ইসােমিপ্রাজল গ্যাস্ট্রিক এসিডের উপাদান কমিয়ে দেয় যার ফলে যে সকল ওষুধের বায়ােঅ্যাভেইলিবিলিটি নির্ধারনের জন্য গ্যাষ্ট্রিক pH একটি গুরত্বপূর্ণ বিষয় তাদের শােষন ব্যহত হতে পারে (যেমন: কিটোকোনাজল, আয়রন সল্ট, ডিগক্সিন)।

প্রতিনির্দেশনা

  • এই ট্যাবলেটের যে কোন উপাদান অথবা প্রতিস্থাপিত বেনজিমিডাজল এর সাথে প্রতিনির্দেশিত হলে।
  • অ্যাজমা, চুলকানি থাকলে অথবা অ্যাসপিরিন বা অন্যান্য এন.এস.এ.আই.ডি. এর সাথে পূর্বে চুলকানী জাতীয় ক্রিয়া হয়ে থাকলে।
  • করােনারী আর্টারী বাইপাস গ্রাফ্‌ট সার্জারী চলাকালীন অবস্থায়।

পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া

সাধারনত এই প্রিপারেশনটি সুসহনীয়। ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালে যে সকল পার্শ্ব-প্রতিক্রিয়া দেখা যায় (>৫%) তা হলাে- ইরােসিভ গ্যাস্ট্রাইটিস, ডিসপেপসিয়া, গ্যাস্ট্রাইটিস, পাতলা পায়খানা, গ্যাস্ট্রিক আলসার, পেটের উপরের অংশে ব্যথা, বমিবমি ভাব ইত্যাদি।

গর্ভাবস্থায় ও স্তন্যদানকালে

প্রেগন্যান্সি ক্যাটাগরি সি। গর্ভাবস্থার শেষের দিকে ব্যবহার বর্জন করা উচিত, কারন এটি ডাক্টাস আর্টেরিওসাসের অপরিণত বন্ধের কারন হতে পারে। ন্যাপ্রােক্সেন থাকার কারনে স্তন্যদানকালে এটি ব্যবহার করা উচিত নয়।

সতর্কতা

হৃদজনিত সমস্যার রােগী অথবা হৃদরােগের ঝুঁকি রয়েছে এমন রােগীদের ক্ষেত্রে সতর্কতা অবলম্বন করা প্রয়ােজন। এছাড়াও এই ট্যাবলেট ফ্লুইড রিটেনশন ও হার্ট ফেইলর রােগীদের ক্ষেত্রে সাবধানতার সাথে ব্যবহার করা উচিত।

বিশেষ ক্ষেত্রে ব্যবহার

বয়স্ক রােগীদের জন্য: পরীক্ষার মাধ্যমে জানা যায় যে, যদিও সম্পূর্ণ প্লাজমা মাত্রা অপরিবর্তীত থাকে কিন্তু মুক্ত অংশের ন্যাপ্রােক্সেন বয়স্ক রােগীদের ক্ষেত্রে বৃদ্ধি পায়। যখন উচ্চ মাত্রার সেবন প্রয়োজন তখন সাবধানতার সাথে ব্যবহার করা উচিত এবং বয়স্ক রােগীদের ক্ষেত্রে সেবনমাত্রা পরিবর্তনের প্রয়ােজন হতে পারে। যেহেতু বয়স্ক রােগীদের ক্ষেত্রে অন্যান্য ওষুধ ব্যবহার করা হয় সেহেতু সম্ভাব্য নিম্নতম মাত্রা ব্যবহার করা উচিত।

মধ্যবর্তী থেকে উচ্চ কিডনি সমস্যার রােগীদের ক্ষেত্রে: ন্যাপ্রােক্সেন সম্বলিত ওষুধগুলাে মধ্যবর্তী থেকে উচ্চ পর্যায়ের কিডনি সমস্যার রােগীদের ক্ষেত্রে (ক্রিয়েটিনিন ক্লিয়ারেন্স ৩০ মি.লি/মিনিট) নির্দেশিত নয়।

হেপাটিক সমস্যা জনিত রােগীদের ক্ষেত্রে: অল্প হতে মধ্যবর্তী হেপাটিক সমস্যার রােগীদের ক্ষেত্রে নিবিড় পর্যবেক্ষণ করতে হবে এবং এই ট্যাবলেটের ভেতর ন্যাপ্রােক্সেনের পরিমান হিসেব করে মাত্রা পুনঃনির্ধারন করতে হবে। তীব্র হেপাটিক সমস্যার রােগীর ক্ষেত্রে ইহা নির্দেশিত নয় কারন এসকল রােগীর ক্ষেত্রে ইসােমিপ্রাজল এর মাত্রা দৈনিক ২০ মিলিগ্রামের বেশী প্রয়ােগ করা যাবে না।

মাত্রাধিক্যতা

এই ট্যাবলেটের মাত্রাধিক্যের কোন ক্লিনিক্যাল ডেটা পাওয়া যায় না।

ন্যাপ্রােক্সেনের মাত্রাধিক্য: লক্ষণগুলাে হল- অবসন্নতা, ঘুমঘুম ভাব, পেট ব্যাথা, পেটে অস্বস্থি, বুকজ্বালা, বদহজম, বমিবমি ভাব, সাময়িকভাবে লিভার ক্রিয়ার পরিবর্তন, হাইপােপ্রােথ্রমবিনেমিয়া, রেনাল সমস্যা, মেটাবলিক এসিডােসিস, শ্বাসকষ্ট, বমি হওয়া ইত্যাদি।

ইসােমিপ্রাজলের মাত্রাধিক্য: লক্ষণগুলাে হল- মােটর কার্যক্ষমতা হ্রাস পাওয়া, শ্বাস নিতে সমস্যা, কাঁপুনি এবং ইন্টারমিটেন্ট ক্লোনিক কনভালশন ইত্যাদি।

থেরাপিউটিক ক্লাস

Drugs for Osteoarthritis, Drugs used for Rheumatoid Arthritis, Non-steroidal Anti-inflammatory Drugs (NSAIDs)

সংরক্ষণ

৩০° সেন্টিগ্রেড তাপমাত্রার নীচে আলাে ও আর্দ্রতা থেকে দূরে, ঠাণ্ডা ও শুষ্ক স্থানে রাখুন। সকল প্রকার ওষুধ শিশুদের নাগালের বাইরে রাখুন।
Hi, hope you are enjoying MedEx.
Please rate your experience