Unit Price: ৳ 8.00 (30's pack: ৳ 240.00)
Also available as:

নির্দেশনা

উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রনের জন্য ওলমেসারটান মেডােক্সোমিল নির্দেশিত। এটি এককভাবে অথবা অন্য উচ্চ রক্তচাপ বিরােধী ওষুধের সাথে কম্বিনেশন হিসাবে ব্যবহার করা যাবে।

ফার্মাকোলজি

অ্যানজিওটেনসিন-II (যা তৈরী হয় অ্যানজিওটেনসিন-I থেকে অ্যানজিওটেনসিন কনভার্টিং এনজাইম প্রভাবিত বিক্রিয়ার মাধ্যমে) একটি শক্তিশালী ভেসােকন্সট্রিকটর, যা প্রাথমিক ভেসােঅ্যাকটিভ হরমােন রেনিন অ্যানজিওটেনসিন সিস্টেম-এর এবং উচ্চরক্তচাপের প্যাথােফিজিওলজির জন্য একটি গুরুত্বপূর্ণ উপাদান। এটি অ্যাড্রেনাল করটেক্স থেকে অ্যালডােসটেরনের নিঃসরণ বাড়ায়। ওলমেসারটান সুনির্দিষ্টভাবে AT1 রিসেপ্টর (যা পাওয়া যায় বিভিন্ন টিস্যুতে, যেমন-ভাস্কুলার স্মুথ মাসল, অ্যাড্রেনাল গ্লান্ড) এর সাথে অ্যানজিওটেনসিন-II এর যুক্ত হওয়া বন্ধ করার মাধ্যমে অ্যানজিওটেনসিন-II এর ভেসােকন্সট্রিকটর ও অ্যালডােসটেরন-সিক্রেটিং প্রভাবকে বাধা দেয়। ইন-ভিটরাে-বাইন্ডিং পরীক্ষায় দেখা গেছে যে ওলমেসারটান, AT1 রিসেপ্টর এর একটি পরিবর্তনীয়, প্রতিযােগিতামূলক প্রতিবন্ধক। ওলমেসারটান ACE এনজাইম কে (এনজাইম যা অ্যানজিওটেনসিন-I থেকে অ্যানজিওটেনসিন-II করে এবং ব্র্যাডিকাইনিন কে ভাঙ্গে); বাধা দেয়না।

মাত্রা ও সেবনবিধি

ওলমেসারটান এর নির্দেশিত প্রারম্ভিক মাত্রা হলাে ২০ মি.গ্রা. করে দিনে একবার। পরবর্তীতে উচ্চ রক্তচাপ যথাযথ নিয়ন্ত্রণের জন্য ২ সপ্তাহ পর মাত্রা বৃদ্ধি করে ৪০ মি.গ্রা. করা যেতে পারে। ৪০ মি.গ্রা. এর অধিক মাত্রা অথবা দিনে দুইবার ওষুধ সেবনে ওষুধের আলাদা কোন কার্যকারিতা বৃদ্ধি পায় না।

বয়স্ক রােগী, মাঝারী থেকে তীব্র অকার্যকর যকৃতের রােগীদের (ক্রিয়েটিনিন ক্লিয়ারেন্স <৪০ মি.লি./মিনিট) ক্ষেত্রে মাত্রা পুনঃনির্ধারণের প্রয়ােজন নেই। যে সকল রােগী ডাইইউরেটিকস সেবন করছেন, ওলমেসারটান দ্বারা চিকিৎসায় তাদেরকে পর্যবেক্ষণে রাখতে হবে এবং প্রারম্ভিক মাত্রা কম হতে হবে। ওলমেসারটান সেবন খাবারের সাথে সম্পৃক্ত নয়।

ঔষধের মিথষ্ক্রিয়া

অন্য ওষুধের সাথে: ওলমেসারটান অন্য ওষুধের সাথে সেবন করে কোনরকম প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি।

খাবারের সাথে: খাবার ওলমেসারটান এর বায়ােএ্যভেইলএ্যাবিলিটির কোন পরিবর্তন ঘটায় না।

প্রতিনির্দেশনা

যে সকল রােগীদের ওলমেসারটান অথবা এর যে কোন উপাদানের প্রতি অতিসংবেদনশীলতা রয়েছে, তাদের ক্ষেত্রে প্রতিনির্দেশিত।

পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া

প্রচলিত: পিঠে ব্যথা, ব্রংকাইটিস, ক্রিয়েটিন ফসফোকাইনেজ বৃদ্ধি, ডায়রিয়া, মাথা ব্যথা, হেমাটুরিয়া, হাইপারগ্লাইসেমিয়া, হাইপারট্রাইগ্লিসারাইডেমিয়া, ইনফ্লুয়েনজার মত উপসর্গ, ফ্যারিংজাইটিস, রাইনাইটিস, সাইনুসাইটিস ইত্যাদি।

বিরল: বুকে ব্যথা, পেরিফেরাল ইডিমা, আর্থরাইটিস।

গর্ভাবস্থায় ও স্তন্যদানকালে

গর্ভাবস্থায়: গর্ভধারণ নিশ্চিত হলে যত দ্রুত সম্ভব এই ওষুধ ব্যবহার পরিহার করতে হবে। গর্ভাবস্থায় ২য় ও ৩য় ট্রাইমেস্টারে ব্যবহারের সময় যে সকল ওষুধ রেনিন এনজিওটেনসিন সিস্টেমে কার্যকর, সেগুলাে ভ্রুণের ক্ষতি এমনকি মৃত্যু ঘটাতে পারে।

স্তন্যদানকারী মা: ওলমেসারটান মাতৃদুগ্ধে নিঃসৃত হয় কিনা জানা যায়নি। তবে ইঁদুরের ক্ষেত্রে অল্প মাত্রায় নিঃসৃত হয়। বাচ্চার ক্ষতি হবার সম্ভাবনা এবং মায়ের ওষুধ গ্রহণের প্রয়ােজনীয়তার দিক পর্যালােচনা করে ওষুধ সেবন অথবা দুগ্ধদান এর যে কোন একটি পরিহার করতে হবে।

সতর্কতা

রেনিন-এনজিওটেনসিন-এলডােসটেরন প্রক্রিয়া বাধাদানের পাশাপাশি ওলমেসারটান বৃক্কের কার্যকারিতার পরিবর্তন ঘটাতে পারে। যে সব রােগীদের বৃক্কের কার্যকারিতা রেনিন-এনজিওটেনসিন-এলডােসটেরন প্রক্রিয়ার উপর নির্ভরশীল (মারাত্মক কনজেসটিভ হার্ট ফেইলিওর এ আক্রান্তদের ক্ষেত্রে) তাদের ক্ষেত্রে এনজিওটেনসিন কনভারটিং এনজাইম প্রতিবন্ধক এবং এনজিওটেনসিন রিসেপ্টর প্রতিবন্ধক এর মাধ্যমে চিকিৎসায় ওলিগুরিয়া অথবা রক্তে অতিরিক্ত নাইট্রোজেন ঘটিত পদার্থের উপস্থিতি, এজোটিমিয়া এবং (খুব সামান্য ক্ষেত্রে) তীব্র রেনাল অকার্যকারিতা হতে পারে। ওলমেসারটান গ্রহণকারী রােগীদের ক্ষেত্রেও এ অবস্থা ঘটতে পারে।

বিশেষ ক্ষেত্রে ব্যবহার

শিশুদের ক্ষেত্রে: শিশুদের ক্ষেত্রে ওলমেসারটান এর নিরাপত্তা এবং কার্যকারিতা এখনও প্রতিষ্ঠিত নয়।

মাত্রাধিক্যতা

লক্ষণ: হাইপােটেনশন, ট্যকিকার্ডিয়া।

চিকিৎসা: যদি বেশিমাত্রায় ওলমেসারটান সেবন করা হয়ে থাকে তাহলে দ্রুততম সময়ে বমি ঘটিয়ে তা বের করতে হবে ।

থেরাপিউটিক ক্লাস

Angiotensin-ll receptor blocker

সংরক্ষণ

৩০° সেন্টিগ্রেড তাপমাত্রার নিচে আলাে ও আর্দ্রতা থেকে দূরে, শুষ্ক স্থানে রাখুন। ঠাণ্ডা ও সকল ওষুধ শিশুদের নাগালের বাইরে রাখুন।